খেলাসর্বশেষ

আজকে সাকিবের জ্বলে ওঠার দিন

৮টি জয়ের মধ্যে ৭টিতেই সঙ্গী এই তারকা

বাংলাদেশ দল সেরা; বিশ্বের অন্যতম সেরা তারকা সাকিব আল হাসান। তিনি ওডিআইতে এক নম্বর অলরাউন্ডার হিসেবে ভারতের মাটিতে ২০২৩ সালের বিশ্বকাপও খেলেছেন।

 

সাকিব আল হাসান
সাকিব আল হাসান

ব্যাট-বলে দারুণ আত্মবিশ্বাসের পাশাপাশি বাংলাদেশ দলের অধিনায়কত্বের দায়িত্বও তার কাঁধে। তবে এই বিশ্বকাপে নিজের সেরা ফর্ম দেখাতে পারেননি সাকিব। বল হাতে ৩ ম্যাচে ৫ উইকেট নিলেও ব্যাট হাতে ১৪, ১ ও ৪০ রানের ইনিংস খেলেন। ব্যাটিং পরিসংখ্যান তার নামের সাথে মিলছে না।

তারপরও আজকের ম্যাচকে সামনে রেখে মনের কোণে একটাই প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে- আজ সাকিবের জ্বলে ওঠার দিন! আজ বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ভারত। হ্যাঁ, তার কাছ থেকে প্রত্যাশা বেশি কারণ প্রতিপক্ষ ভারত। বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যকার হেড টু হেড ম্যাচের পরিসংখ্যান সাকিবের জন্য আশার ছবি উপহার দিতে উৎসাহব্যঞ্জক।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে শেষ ম্যাচ খেলার পর ইনজুরির আশঙ্কায় ছিলেন। তবে আশা করা হচ্ছে পরশু দলের হয়ে অনুশীলন করবেন অধিনায়ক সাকিব। দলের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে নিশ্চিত করে কিছু জানানো না হলেও আজকে অবশ্যই খেলবেন বলে আশা করা হচ্ছে। এবং যদি তিনি খেলেন, ব্যাট বা বল বা উভয় হাতেই তাকে নিজের ফর্মে দেখা যাবে এমন সম্ভাবনা রয়েছে। ভারতের বিপক্ষে বড় তারকা হিসেবে সে এমনিতেই একজন ‘বিগ ম্যাচ’ খেলোয়াড়। প্রতিপক্ষ ভারত হলে তার কাছে প্রত্যাশা আরও বড়। তবে, অতীতের পরিসংখ্যান এটি দেখায়। ওয়ানডে ক্রিকেটে মোট ৪০ বার ভারতের মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশ। এর মধ্যে ভারত ৩১টি ম্যাচে জিতেছে এবং বাংলাদেশ জিতেছে ৮টি ম্যাচে। দ্বিতীয় ম্যাচটি বাতিল হয়ে যায়। এভাবে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের ৮টি জয়ের মধ্যে ৭টিতেই সঙ্গী এই তারকা।

সাকিব আল হাসান
সাকিব আল হাসান

৪ সালে প্রথম জয়ে ছিলেন না ,পরের ৭টি জয়ে মাঠে ছিলেন। ভারতের বিপক্ষে সেই ৭টি জয়ে এই তারকার শুধু সঙ্গীই ছিল না, বড় অবদানও ছিল। কোনোটিতে তিনি ব্যাট হাতে বড় ভূমিকা পালন করেন আবার কোনোটিতে বল হাতে। ব্যাট ও বল দুই হাতেই এর মধ্যে কিছু কিছুতে প্রভাব ফেলেছেন সাকিব। বিশ্বকাপে বাংলাদেশ ভারতের বিপক্ষে ৪টি ম্যাচের মধ্যে একটিতে জিতেছিল, ২০০৭ সালের বিশ্বকাপ জয়ে বড় ভূমিকা ছিল। ব্যাট হাতে ৫ উইকেটে জিততে ৫৩ রানের কার্যকরী ইনিংস খেলেন তিনি।

সাকিব আল হাসান
সাকিব আল হাসান

ত্রিনিদাদের পোর্ট অফ স্পেনের কুইন্স পার্ক ওভালে ওয়ানডেতে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের দ্বিতীয় জয়। ৭-এর মধ্যে প্রথম জয়। পরবর্তী ৬টি জয়ে কোনো না কোনোভাবে অবদান রাখেন সাকিব। ভারতের বিপক্ষে ৭টি জয়ে সাকিব যথাক্রমে ৫৩, ৪৯, ৫২, ৫১, ২৯, ৮ ও ৮০ রানের ইনিংস খেলেন। মোট ৩২২ রান। এছাড়াও তিনি ১০ উইকেট নেন। দুইবার ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার জিতেছেন তিনি। একবার দেখিয়েছেন ৫ উইকেট নেওয়ার কীর্তি। ওই ম্যাচে ‘জনতা’-এর হয়ে ম্যান অব দ্য ম্যাচ হন তিনি।

 

আশার কথা, ভারতের বিপক্ষে চৌ-এর ৭টি জয়ের শেষ ছিল দুই দলের মধ্যকার লড়াইয়ে। গত ১৫ সেপ্টেম্বর এশিয়া কাপে ড. মজার ব্যাপার হলো, ভারতের বিপক্ষে জয় ঘোষণার সাথে সাথেই কলম্বোতে নেমেছেন এই তারকা! কলম্বোর ম্যাচটি বাংলাদেশের জন্য একটি আনুষ্ঠানিকতা ছিল, যারা সুপার ফোর পর্বে পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কার কাছে হেরে ফাইনালের দৌড় থেকে ছিটকে পড়েছিল। এমন গুরুত্বহীন ম্যাচে কী কাঙ্খিত হতে পারে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে অধিনায়ক খুব দৃঢ়ভাবে বলেন, ইচ্ছা জেতার। তিনি সহজভাবে বলেছেন, ‘ভারতের বিপক্ষে জিতে আমি দেশে ফিরতে চাই।’ নিজের প্রতিশ্রুতি রক্ষায় নিজেই ব্যাট-বলে মুগ্ধ হয়ে দলকে ৬ রানে জয়ের পথে নিয়ে যান। ব্যাট হাতে দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৮০ রানের ইনিংস খেলার পর বল হাতে নেন ১ উইকেট।

 

ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডে ম্যাচে সামগ্রিক পরিসংখ্যানও তার পক্ষে কথা বলে। ভারতের বিপক্ষে২২ টি ওডিআই ম্যাচের ২১ টি ইনিংসে সাকিব ৭৫১ রান করেছেন এবং২৯ টি উইকেট নিয়েছেন। তাই পরিসংখ্যানের আলোকে আশার ছবি আঁকা যায়- আজ পুনেতে সাকিবের দিন হতে পারে।

আরও পড়ুন
বাংলাদেশ মালদ্বীপকে হারিয়ে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের দ্বিতীয় রাউন্ডে

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Back to top button